কেন ‘দইয়ল’? / সুমনকুমার দাশ

[গানসংখ্যা-১]

কেন দইয়ল?- ইদানীং এমন প্রশ্নের মুখোমুখি বার বার হতে হচ্ছে। দইয়ল বেরোনোর বেশিদিন হয়নি। মাত্র তো একটি খ- বেরোলো, তা-ও কার্তিক মাসের ১ তারিখ (১৬ অক্টোবর ২০১৪ খ্রিস্টাব্দ)। কিন্তু এরই মধ্যে পাঠকেরা পত্রিকাটি গ্রহণ করেছেন- সেটা সম্পাদক হিসেবে আমার জন্য একটু আনন্দেরই বটে। শুরুতে এটি বলে নেওয়া দরকার যে, কোনও লাভজনক কিংবা বাণিজ্যমুখী চিন্তা থেকে দইয়ল প্রকাশ করা হয়নি। জানি, এ-কথা বলার পর স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠবে/উঠতে পারে- তবে গাঁটের পয়সা খরচ করে কেনই-বা পত্রিকাটি প্রকাশ করা?

দইয়ল

উপর্যুক্ত প্রশ্নের কোনও যুৎসই উত্তরও আমার কাছে নেই। তবে এটুকু অন্তত বলে রাখি- অনতিপ্রচারিত বাংলাগানের নানা ক্ষেত্র নিয়ে কাজ করার উদ্দেশ্যেই পত্রিকাটির যাত্রা শুরু। আমরা বিশ্বাস করি, পত্রিকাটি কেমন কাগজে বেরোলো কিংবা কারা প্রকাশ করল- সেটা মুখ্য নয়, মূল কথা পাঠকের কাছে ভালো লেখা পৌঁছে দিতে পারলে সেটা তাঁরা গ্রহণ করবেনই। পাঠক-প্রত্যাশা মেটানোই হলো বড়ো কথা। আমাদের কেবল তো পথচলা, দেখা যাক কতদূর এগোনো যায়!

 

দুই

হাওরে জন্ম। তাই ছোটোবেলা থেকেই গানের সঙ্গে বেড়ে উঠেছি। কত কী যে গান! অনেক গানের ধারাই এখন তলানিতে ঠেকেছে! সেসব দেখে আফসোস হয়, ভাবি- সংরক্ষণ ও পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে সারা দেশে তো একই অবস্থা চলছে। তাই শুধু গান নিয়ে একটি কাগজ প্রকাশের পরিকল্পনা ছিল দীর্ঘদিনের। সেই প্রকাশিতব্য পত্রিকাটিতে গান নিয়ে নানান লেখকের ভাবনা-চিন্তার প্রকাশ ঘটবে অব্যাহতভাবে। আর এ ইচ্ছে থেকেই বেরোলো দইয়ল। দইয়ল, অর্থাৎ দোয়েল, আমাদের জাতীয় পাখি। বাংলাদেশের অনেক জায়গায় দোয়েলকে ‘দইয়ল’-ই বলা হয়। পাখির নামে গানের কাগজের নাম! পাখি যেমন গান গায় মনের আনন্দে, তেমনই এ কাগজও আপন স্বভাবগুণে গান নিয়ে অবারিত কাজ করে যাবে।

দইয়ল-এর সম্পাদকীয়তে লেখা কিছু পঙ্ক্তি তুলে ধরার লোভ সামলাতে পারলাম না। সেখানে শেষ অনুচ্ছেদে লিখেছিলাম : ‘দইয়ল বাংলাগানের বিচিত্র সব ধারা নিয়ে কাজ করতে আগ্রহী। বাংলাগানের বর্তমান পরিবেশ ও বিবর্তন, গীতিকার থেকে শিল্পী- সব বিষয়ে আগ্রহী সবার ভাবনা-চিন্তা, মতামত, মূল্যায়ন আমরা ছাপতে চাই। এই কাগজ প্রকাশের ব্যাপারে লেখক ও পাঠকের সার্বিক সহযোগিতা প্রত্যাশা করছি।’

এ-প্রসঙ্গে আরেকটু সংযুক্ত করতে চাই, কেবল যে বাংলাগানের বহুতর দিক নিয়েই দইয়ল কাজ করবে, সেটা কিন্তু নয়। আমরা বাংলাগানের সঙ্গে ভিনদেশের গানের পরম্পরা এবং তুলনামূলক বিশ্লেষণধর্মী লেখাও ছাপতে আগ্রহী। এক কথায় গানপ্রিয় পাঠকগোষ্ঠী গড়ে তোলাই আমাদের মূল উদ্দেশ্য।

 

তিন

একটা গানের কাগজও যে তুমুল আলোড়ন তুলতে পারে, সম্ভম জাগাতে পারে- সেটা দইয়ল প্রকাশিত হওয়ার পর অনুভব করলাম। তবে এটা যে দইয়ল-এর সুনির্বাচিত লেখকদের কৃতিত্ব, সেটা এক বাক্যে স্বীকার করে নেওয়া দরকার। পত্রিকাটির সম্পাদক হিসেবে আমি কেবল সূত্রধরের ভূমিকাটুকুই পালন করেছি। তাই আমাদের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে দইয়ল-এর প্রথম খন্ডে বাংলাদেশ ও ভারতের যে ২১ জন গুণী লেখক সহযাত্রী হয়েছেন, তাঁদের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ।

দইয়ল-এর দ্বিতীয় খন্ডের কাজ চলছে, সেখানেও আমরা অনেককেই লেখার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছি। সেসব লেখা প্রাপ্তি সাপেক্ষে ধারাবাহিকভাবে দইয়ল-এ প্রকাশ করা হবে। বাংলাদেশের এক প্রান্তিক শহর সিলেটে বসবাস করেও আমরা নিজেদের কখনও-ই বিচ্ছিন্ন মনে করি না। আমাদের বিশ্বাস- দইয়ল একদিন ঠিকই বিশ্ব-আকাশে আপন ও স্বতন্ত্র সত্তা নিয়ে উড়ে বেড়াবে। আর এ জন্য প্রয়োজন পাঠক-লেখকের অব্যাহত সমর্থন ও সহযোগিতা। আগামী পয়লা বৈশাখ বেরোবে দইয়ল-এর দ্বিতীয় খ-। সে-খ- পাঠে পাঠককে আগাম আমন্ত্রণ। আমরা আপনাদের সমর্থনপ্রত্যাশী।

...

সুমনকুমার দাশসুমনকুমার দাশ

সম্পাদক, দইয়লগদ্যকার

Leave a comment

Filed under সারথি

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s